“ডিপফেইক প্রযুক্তি”  আপনি নাকি অন্য কেউ?

ডিপফেইক (Deepfake) কী

Deep মানে হল গভীর আর Fake মানে জাল। ডিপফেইক শব্দের অর্থ “গভীর জাল “। মূলত ডিপফেইক টেকনোলোজি (Deepfake Technology) হলো এমন একটি সিন্থেটিক (Synthetic) মিডিয়া যেখানে ছবি বা ভিডিওসমূহ একটি মানুষের সদৃশ্যতার উপর ভিত্তি করে অন্য কারো সাথে প্রতিস্থাপন করা হয়। 

“Deepfakes is a process to make images of fake events and fake voice by using a form of artificial intelligence”

                                                          Image Source: bankinfosecurity.com

ডিইপফেক প্রযুক্তির ইতিহাস

ছবির ম্যানিপুলেশন উনিশ শতাব্দীর শুরুতে উন্নত হতে শুরু করেছিলো এবং বিশ শতাব্দীতে তার উন্নয়ন হয়েছিলো অবিচ্ছিন্নভাবে। সর্বপ্রথম ১৯৯০-এর দশকের শুরুতে একাডেমিক সংস্থাগুলির গবেষকরা এবং পরবর্তীতে অনলাইন সম্প্রদায়ের অপেশাদারগণ ডিপফেক প্রযুক্তিটির বিকাশ করেছেন। ডিপফেকস সম্পর্কিত একাডেমিক গবেষণার প্রথম দিকে ১৯৯৭ সালে প্রকাশিত সর্বপ্রথম ল্যান্ডমার্ক প্রকল্পটি ছিল ভিডিও রাইরাইট প্রোগ্রাম, যেখানে একজন ব্যক্তির ভিন্ন ভিডিও এবং অডিও ট্র্যাকের মাধ্যমে শব্দগুলিকে বিদ্রূপ করে সেই ব্যক্তিকে চিত্রিত করতে বলার জন্য বিদ্যমান ব্যক্তির ভিডিও ফুটেজ সংশোধন করেছিল। মুখের পুনঃর্নির্মাণ সম্পূর্ণরূপে স্বয়ংক্রিয়ভাবে পরিচালিত করার প্রথম সিস্টেম ছিলো এটি।

ডিপফেক কীভাবে তৈরী হয়

ডিপফেইক প্রযুক্তির মূলমন্ত্র হল “মেশিন লার্নিং (Machine learning) “। প্রথমে কারো ডিপফেইক ভিডিও বানানোর জন্য একটি নিউরাল নেটওর্য়াকের প্রশিক্ষনের মাধ্যমে বিভিন্ন কোন (Angle) থেকে এবং আলোকসজ্জ্বার অধীনে রিয়েল ভিডিও ফুটেজ তৈরী করে। তারপর কম্পিউটার-গ্রাফিক্স কৌশলগুলোর সাথে প্রশিক্ষিত নেটওয়ার্ককে একত্রিত করে অন্য ব্যক্তির সাথে প্রতিস্থাপন করা হয়। জেনারেটিভ অ্যাডভারসেরিয়াল নেটওয়ার্ক (GAN) নামে পরিচিত গভীর-লার্নিং অ্যালগরিদমগুলির একটি শ্রেণি ভবিষ্যতে ডিপফেকস বিকাশের প্রধান ইঞ্জিন হবে। এছাড়াও Artificial intelligence (A.I.) যুক্ত হওয়ায় এই প্রক্রিয়া আরো দ্রুততর হয়েছে। 

Image Credit : the guardian.com

মেশিন লার্নিং (Machine learning)

মেশিন লার্নিং হলো এমন একটি প্রক্রিয়া যেখানে কোন যন্ত্র  বা সফটওয়্যারকে কোনো কাজের মাধ্যমে নিজে নিজে শিখতে সাহায্যে করে এবং পরবর্তিতে আরও বেশি উন্নত হয়ে কাজকে আরও‌ দ্রুততর এবং ইউনিক করে তুলে। এটি আর্টিফিসিয়াল ইন্টালিজেন্সের একটি সাবফিল্ড। শিক্ষার প্রক্রিয়াটি প্রথমে শুরু হয় পর্যবেক্ষণ বা ডেটা দিয়ে ।

যেমন উদাহরণ, প্রত্যক্ষ অভিজ্ঞতা বা নির্দেশাবলীর মাধ্যমে। এটি সাহায্যে করে  উপাত্তগুলিতে নিদর্শনগুলো অনুসন্ধান করতে এবং আমরা যে উদাহরণ সরবরাহ করি তার ভিত্তিতে ভবিষ্যতে আরও ভাল সিদ্ধান্ত নিতে। মেশিন লার্নিংয়ের প্রাথমিক লক্ষ্য হল কম্পিউটারগুলো মানুষের হস্তক্ষেপ বা সহায়তা ছাড়াই স্বয়ংক্রিয়ভাবে যাতে শিখতে পারে এবং সে অনুযায়ী ক্রিয়াকলাপগুলো সামঞ্জস্য করতে পারে ।

ডিপফেকস কে তৈরী করে❓

একাডেমিক এবং শিল্প গবেষক থেকে শুরু করে অপেশাদার উৎসাহী, ভিজ্যুয়াল এফেক্ট স্টুডিও এবং অশ্লীল প্রযোজক সবাই‌ চূড়ান্ত দলগুলোকে বদনাম ও বিঘ্নিত করতে এইসব ভিডিও বানিয়ে থাকে।

ডিপফেকের ব্যবহারসমূহ

◾অ্যাডলফ হিটলারের মুখের পরিবর্তে আর্জেন্টিনার প্রেসিডেন্ট মরিসিসিও ম্যাক্রির মুখ এবং ডোনাল্ড ট্রাম্পের পরিবর্তে অ্যাঞ্জেলা মের্কেলের মুখের প্রতিস্থাপন করা হয়েছিল। 

◾উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং-উন এবং রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের ডিপফ্যাকসও তৈরি করেছেন একটি নিরপেক্ষ পক্ষের অ্যাডভোকেসি গ্রুপের প্রতিনিধি ইউ দ্বারা। 

জনপ্রিয় সংস্কৃতিতে – ১৯৯৩ সালে রাইজিং সান অভিনীত সিন. কনারি এবং ওয়েসলি স্নিপ্সে চরিত্রে জিঙ্গো আসাকুমা,  যাকে একটি কম্পিউটার ডিস্ক প্রতিযোগীকে জড়িত করার জন্য ডিপফেক দ্বারা বদলানো হয়েছে।

◽ডিপফেইক প্রযুক্তি 2019 বিবিসি ওয়ান নাটক দ্য ক্যাপচারের প্লটের অংশ। সিরিজটিতে ব্রিটিশ প্রাক্তন সৈনিক শন এমেরিকে অনুসরণ করেছে, যার বিরুদ্ধে তার ব্যারিস্টারকে লাঞ্ছনা ও অপহরণের অভিযোগ রয়েছে। 

Image Credit : IEEE spectrum.com

ইন্টারনেট মেম

২০২০ সালে, ভিডিও গেম সিরিজ ইয়াকুজার একটি গান “বাকা ​​মিতাই” এর কোরাস গাওয়া লোকেদের ভিডিও তৈরি করতে ডিপফেকস ব্যবহার করে একটি ইন্টারনেট মেম উঠে আসে। সিরিজটিতে, খেলোয়াডরা় মিলে কারাওকে মিনিগামে মেলানলিক গানটি গেয়েছেন। এই মেমটি তৈরী হয়েছে ২০১৭ সালের ডবসাইরোলেসের একটি ভিডিও ব্যবহার করে যিনি গানে ঠোঁট সিঙ্ক করেন।

Img:imgflip.com

পর্নোগ্রাফী 

পর্নোগ্রাফীতে ডিইপফেকের ব্যবহার সর্বাধিক। বিভিন্ন অভিনেত্রীদের তাদের অমতে চেহারা প্রতিস্থাপনের মাধ্যমে পর্নোগ্রাফী তৈরী হচ্ছে। বর্তমানে ইন্টারনেটে মোতায়েন করা ডিপফেকের ৯  শতাংশ অবৈধ পর্নোগ্রাফি। আমস্টারডামে সনাক্তকারী সংস্থা ডিপট্র্যাসের গবেষণার প্রধান হেনরি আজদার বলেছেন, বেশিরভাগ টার্গেট সেলিব্রিটি, জাল প্রতিহিংসা পর্ন তৈরি করতে ডিপফেকসের ব্যবহারের সংখ্যা ক্রমবর্ধমান রয়েছে ।

সিনেমাক্ষেত্রে 

ভবিষ্যতের চলচ্চিত্রের ডিজিটাল অভিনেতা তৈরিতে ডিপফেকস ব্যবহার করা হবে বলে ধারনা করা হচ্ছে। এছাড়াও বিভিন্ন সিনেমায় মুখের পরির্বতনের মাধ্যমে অভিনয় করে যাচ্ছে।

◽ম্যান অফ স্টিলের একটি দৃশ্যে, আসল (বাম) অভিনেত্রী অ্যামি অ্যাডামসকে অভিনেতা নিকোলাস কেজ (ডান) এর চেহারাটি সংশোধন করা হয়েছে।

img:Wikipedia org.com

◽প্রয়াত জেমস ডিন ফাইন্ন্ডিং জ্যাক, একটি ভিয়েতনাম যুদ্ধের সিনেমায় অভিনয় করে ডিপফেইক এর মাধ্যমে ।                                    

ডিপফেক কি সর্বদা দূষিত

একদমই না, হুমকি কিংবা খারাপ দিক ছাড়াও ডিপফেকের কিছু ভালো দিক রয়েছে ।

🔹 যখন লোকেদের কণ্ঠস্বর থেকে হারিয়ে যায় তখন ভয়েস-ক্লোনিং ডিপফ্যাকগুলি‌ তাদের কণ্ঠ পুনরুদ্ধার করতে পারে। 

🔹ডিপফেক দ্বারা তৈরী ভিডিওগুলো গ্যালারি এবং জাদুঘরগুলোকে আরো প্রানবন্ত করতে পারে। 

🔹বিনোদন শিল্পের জন্য ডিপফেক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে।

🔹বিদেশী ভাষার চলচ্চিত্রগুলির ডাবিং উন্নত করতে ব্যবহার হয়।

🔹বিতর্কিতভাবে মৃত অভিনেতাদের পুনরুত্থিত করতে ব্যবহার করা যায়।

সমাধান কী

🔸কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা (Artificial intelligence) ইতিমধ্যে জাল ভিডিও গুলো চিহ্নিত করতে সহায়তা করে। ডিপফেকটি সনাক্ত করার জন্য ব্যবহৃত আলগোরিদিমগুলোর অনুরূপ ব্যবহার করা যেতে পারে।

🔸2018 সালে, দূষিত ডিপ জাল নিষিদ্ধকরণ আইন চালু ছিল মার্কিন সেনেট ।

🔸 2019 সালে DEEPFAKES অ্যাকাউন্ট এবিলিটি অ্যাক্ট চালু করে় ভারতবর্ষের লোকসভা।

🔸যুক্তরাজ্যে ডিপফেক উপাদান সরবরাহকারীদের হয়রানির জন্য মামলা করা যেতে পারে ।

🔸প্রতিরক্ষা উন্নত গবেষণা প্রকল্প এজেন্সী (DARPA) একটি প্রকল্প যেখানে ব্যক্তির  deepfakes সনাক্ত করতে পারে।

🔸ডিএআরপিএ একটি মিডিয়া ফরেনসিক (মেডিফোর্ড) প্রোগ্রামও তৈরি করেছে, যাতে ডিপফেকস এবং এআই-উৎপাদিত মিডিয়া যে ভয়াবহ ক্ষয়ক্ষতি বাড়ায় তা হ্রাস করতে। 

Reference :

[1] https://en.m.wikipedia.org/wiki/Deepfake

[2]https://spectrum.ieee.org/tech-talk/computing/software/what-are-deepfakes-how-are-they-created

[3}https://www.theguardian.com/technology/2020/jan/13/what-are-deepfakes-and-how-can-you-spot-them 

লেখকঃ ফারজানা চুমকি

তড়িৎ ও ইলেকট্রনিক প্রকৌশল বিভাগ 

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়

Share:

Facebook
LinkedIn
WhatsApp

Responses

On Key

Related Posts

Why Fourier Transform?

Ever heard that shhhhhh……… sound most often from mic? Disturbing enough? What’s that? Let’s Decode! When we speak the signal practically looks kind of like

Learn Python

“Unlock the power of Python with Learn Python!” Introduction Python is a powerful and versatile programming language that is used by many developers and organizations

Days
Hours
Minutes
Seconds